Home » আবারও সাকিব ঝড়ে গায়ানার সহজ জয়

আবারও সাকিব ঝড়ে গায়ানার সহজ জয়

by প্রিয় দেশ ডেস্ক:

রান পাননি সিপিএলের প্রথম দুই ম্যাচে। তবে তৃতীয় ম্যাচ থেকেই যেন সাকিবের ব্যাট হয়ে গেছে খোলা তরবারি। টানা দ্বিতীয় ম্যাচে ঝড়ো অর্ধশতক তুলে নিয়ে বিশ্বকাপের প্রস্তুতিটা বেশ ভালোই সারছেন টাইগার কাপ্তান।

শনিবার ত্রিনবাগো নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে দুর্দান্ত দুর্দান্ত অলরাউন্ড পারফরম্যান্সের পর সোমবার বারবাডোজ রয়্যালসের বিপক্ষেও ঝড় তুলেছেন ব্যাটিংয়ে। সাকিবের ঝড়ো ইনিংসে ৫.৩ ওভার হাতে রেখেই গায়ানা আমাজন ওয়ারিয়র্স জয় পেয়েছে ৫ উইেকেটে। ৩০ বলে ৫ চার আর ৩ ছয়ে ৫৩ রান করেন সাকিব।

টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ের মুখে পড়ে বারবাডোজ। রোমারিং শেফার্ড আর কিমো পলের বোলিং তোপে ৮ রান তুলতেই ৩ উইকেট হারিয়ে ফেলে বারবাডোজ। ৪র্থ উইকেট জুটিতে কিছুটা প্রতিরোধ গড়েন আজম খান আর জেসন হোল্ডার। দুজন মিলে ৫১ রানের জুটি গড়ার পর ব্যক্তিগত ২০ রানে রানআউট হয়ে ফিরে যান আজম খান। এরপর আবারও যেন তাসের ঘরের মতো ভেঙে পড়ে বারবাডোজের মিডল অর্ডার।

ক্রিজের একপ্রান্তে দাড়িয়ে হোল্ডার চেষ্টা করে গেলেও তাকে সঙ্গ দেওয়ার মতো কেউ ছিলো না। ৩৯ বলে ৪২ রান করে হোল্ডার যখদ আউট হন, দলের রান তখন ৭ উইকেটে ৮৩।

বারবাডোজের শেষের তিন ব্যাটসম্যানের দুই অঙ্ক ছাড়ানো ছোহ ছোট ইনিংসে অবশেষে লড়ার মতো পুজি পায় বারবাডোজ।

ইনিংসের ১৭.৩ ওভারে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে মুজিব-রহমানকে ১৫ রানে ফেরান সাকিব। বারবাডোজ অলআউট হয়ে যায় ১২৫ রানেই। ২.৩ ওভার বল করে ১২ রান দিয়ে এই একটি উইকেটই নেন সাকিব। এছাড়া শেফার্ড ৩টি আর পল ও ওডেন স্মিথ নেন ২টি করে উইকেট।

১২৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই ধাক্কা খায় গায়ানা। ১রানেও ওপেনার চন্দরপল হেমরাজকে হারায় তারা। দলীয় ১৮ রানে বিদায় নেন শাই হোপও।

চার নাম্বারে ব্যাটিংয়ে নেমে রহমানুল্লাহ গুরবাজকে নিয়ে প্রতিরোধ গড়েন সাকিব। শুধু প্রতিরোধ নয়, পাল্টা আক্রমণে রীতিমত নাভিঃশ্বাস তুলে ছাড়েন বারবাডোজের বোলারদের। ক্রিজের অপর প্রান্তে গুরবাজকে দর্শক বানিয়ে সাকিবের ব্যাট হয়ে ওঠে খাপ খোলা তলোয়ার। বারবাডোজের বোলাদদের কচুকাটা করে ৫ চার আর ৩ ছক্কায় সাকিব করেন ৫৩ রান। ১১তম ওভারের শেষ বলে ওবেড ম্যাকয়ের বলে সাকিব আউট হওয়ার সময় গায়ানার রান ৩ উইকেটে ৯৭। জয়ের জন্য তখন ৯ ওভারে গায়ানার প্রয়োজন ২৯ রান।

সাকিব ফেরার পর শিমরন হেটমায়ার ৫ বলে ১০ রান করেই ফেরেন। এদিকে ওপেনিংয়ে নামা গুরবাজ ২৫ বলে ২২ রান করে দলীয় ১২৪ রানে আউট হন ম্যাকয়ের বলে। ১০ বলে ১২ রান করে ১৪.৩ ওভারে ৫ উইকেটে দলের জয় নিশ্চিত করে মাঠ ছাড়েন কিমো পল।

ব্যাট হাতে ঝড়ো ফিফটি আর বল হাতে ১ উইকেটের অলরাউন্ড পারফরম্যান্সে টানা দুই ম্যাচে ম্যাচসেরার পুরস্কার পাদ সাকিব আল হাসান। এই জয়ে ১০ ম্যাচে ১১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের দ্বিতীয় স্থানে থেকে প্লে-অফে গেলো গায়ানা।


এই বিভাগের আরো খবর

Leave a Comment